এআরএম টিউটোরিয়াল (পর্ব ১ : সফটওয়্যার ইন্সটলেশন ও এলইডি ব্লিংকিং)

কেন এআরএম জরুরী? আমরা এখনও পর্যন্ত এভিআর, পিআইসি, আরডুইনো ইত্যাদি যত মাইক্রোকন্ট্রোলার আমাদের টিউটোরিয়াল সিরিজে ব্যবহার করেছি সেগুলো সবই ছিল ৮ বিটের মাইক্রোকন্ট্রোলার, স্পিড সবগুলোরই সর্বোচ্চ ২০ মেগাহার্জ কিংবা তারও…

Continue Reading

পর্ব ২২ঃ তালা-চাবিকে দিলাম ছুটি (পাসওয়ার্ডভিত্তিক ডোরলক)

পুরো পৃথিবীই ডিজিটাল হবার পথে। তাহলে দরজার তালার মতো গুরুত্বপূর্ণ জিনিস যা কিনা আমাদের নিরাপত্তার সাথে ঘনিষ্টভাবে জড়িত, সেটি কেন পড়ে থাকবে সেকেলে হয়ে? এই টিউটোরিয়ালে আমরা একটি পাসওয়ার্ডভিত্তিক ডোরলক…

Continue Reading

পর্ব ২১ঃ সার্কিটে বাজাই সুর

মাইক্রোকন্ট্রোলার মানেই কি শুধু রসকসহীন বিট,বাইট আর রেজিস্টারের হিসাব? শুধুই জটিল অংক করে ভোল্টেজ, কারেন্ট আর টেম্পারেচার দেখানো? একটু শৈল্পিক কিছু করলে কেমন হয়? যেমন, মিউজিক? এই এক্সপেরিমেন্টটিতে আমরা মাইক্রোকন্ট্রোলারের…

Continue Reading

পর্ব ১৬ঃ চলো ঘড়ি বানাই।

এই টিউটোরিয়ালে আমরা মাইক্রোকন্ট্রোলারের দুটি টাইমার কনফিগার করে একটি ছয় ডিজিটের(ঘন্টা, মিনিট, সেকেন্ড) ঘড়ি বানাব। এই এক্সপেরিমেন্টটি ভালোভাবে বুঝতে হলে আমাদের কয়েকটি বিষয় ভালোভাবে বুঝতে হবে। সেগুলো হচ্ছে- ১)ATmega16 মাইক্রোকন্ট্রোলারের…

Continue Reading

পর্ব ১৫ঃ টাইমার

টাইমার কী? প্রতিদিনই আমরা টাইমার ব্যবহার করছি। টাইমারের সবচেয়ে সহজ উদাহরণ হল আমাদের হাতঘড়ি যা ঘন্টা, মিনিট এবং সেকেন্ড গননা করে। এভিআর মাইক্রোকন্ট্রোলারের টাইমারের কাজও ঠিক এরকম। সময় গননা করা।…

Continue Reading

পর্ব ১৪ঃ একটি সহজ থার্মোমিটার তৈরি

এই টিউটোরিয়ালটিতে টেকশপবিডিতে উৎপাদিত দুইটি মডিউল ব্যবহার করে আমরা ATmega16 মাইক্রোকন্ট্রোলারভিত্তিক একটি থার্মোমিটার তৈরি করব। থার্মোমিটারের সেন্সর হিসেবে আমরা ব্যবহার করব Temperature Sensor Module এবং ডিসপ্লে অংশে ব্যবহার করব  LCD Module। অর্থ্যাৎ, টেম্পারেচার…

Continue Reading

পর্ব ১৩ঃ এলসিডি

এলসিডিঃ LCD এর পূর্নরুপ হল Liquid crystal display. ইতোমধ্যে আমরা সেভেন সেগমেন্টের ব্যবহার দেখেছি। সেভেন সেগমেন্টের সীমাবদ্ধতা হল একটি সেভেন সেগমেন্ট দিয়ে শুধু একটি সংখ্যাই দেখানো যায়। ইংরেজি বর্নমালার খুবই  অল্পকিছু…

Continue Reading

পর্ব ১২ঃ এডিসি

এডিসি কী? ইলেক্ট্রনিক্সে আমরা যেসব প্যারামিটার নিয়ে কাজ করি বা পরিমাপ করি সেগুলো সাধারনত অ্যানালগ। যেমন ভোল্টেজ, কারেন্ট, রেজিস্টেন্স, টেম্পারেচার ইত্যাদি। কিন্তু মাইক্রোকন্ট্রোলারের যে কয়টা প্রজেক্ট আমরা এই পর্যন্ত করেছি…

Continue Reading

পর্ব ১১ঃ ৪ ডিজিটের ইন্টারাপ্ট কাউন্টার।

ইন্টারাপ্ট কী?: ইন্টারাপ্ট হচ্ছে এমনকিছু কাজ যা মাইক্রোকন্ট্রোলার  মূল ফাংশনের বাইরে গিয়ে ধারাবাহিকভাবে সম্পন্ন করে। যদি আমরা মাইক্রোকন্ট্রোলারকে ইন্টারাপটের মাধ্যমে কিছু করাতে চাই তাহলে  আমাদের একটি ইন্টারাপট সাবরুটিন(ISR) ফাংশন লিখতে…

Continue Reading

পর্ব ১০ : সেভেন সেগমেন্ট ডিসপ্লে।

ইলেক্ট্রনিক্সের ক্ষেত্রে সেভেন সেগমেন্ট ডিসপ্লের ব্যবহার বহুল প্রচলিত। এটি ব্যবহার করা সহজ। যেসব প্রজেক্টে সংখ্যা ডিসপ্লে করার প্রয়োজন পড়ে সেগুলোতে এই সেভেন সেগমেন্ট ডিসপ্লের ব্যবহার খুবই জনপ্রিয়। নাম দেখলেই বোঝা…

Continue Reading

পর্ব ৯ঃ এক্সটার্নাল ইন্টারাপ্ট

ধরা যাক, আপনি আপনার ঘরে বসে একটি বই পড়ছেন। এমন সময় কলিং বেল বেজে উঠলো। আপনি কী করবেন? বইয়ের কোন লাইন পড়ছিলেন সেটা মনে রাখবেন, পড়া বন্ধ রেখে দরজা খুলবেন,…

Continue Reading

পর্ব ৮ঃমাইক্রোকন্ট্রোলার ইনপুট

এই পর্বে আমরা আলোচনা করব কিভাবে মাইক্রোকন্ট্রোলারে ইনপুট দেওয়া যায়। কোডটি খুবই সহজ। AVR studio তে লেখা। এই প্রোগ্রামটি PORTB থেকে ইনপুট নিয়ে PORTC তে আউটপুট দেখায়। সার্কিটে আমরা PORTB…

Continue Reading

পর্ব ৫ঃ কম্পাইলার, লোডার এবং সিমুলেটর

কম্পাইলার কী? মাইক্রোকন্ট্রোলারের জন্য প্রোগ্রাম লিখতে এবং লিখিত প্রোগ্রামকে মেশিন ল্যাংগুয়েজে কনভার্ট করতে যে সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয় তাকে কম্পাইলার বলে। AVR মাইক্রোকন্ট্রোলার প্রোগ্রামিংয়ের জন্য বিভিন্ন কম্পাইলার ব্যবহৃত হয়। যেমনঃ…

Continue Reading

পর্ব ৪ঃ মাইক্রোকন্ট্রোলার প্রোগ্রামার

প্রোগ্রামার বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। এখানে তিন ধরনের প্রোগ্রামার নিয়ে আলোচনা করা হলঃ ১)আই এস পি অ্যাডাপটার:এটি প্যারালাল পোর্ট ভিত্তিক প্রোগ্রামার। সুবিধাঃ বানানো সহজ এবং দামে সস্তা। অসুবিধাঃ বেশিরভাগ কম্পিউটারেই…

Continue Reading

That's All We Have Till Now!

That's All We Have Till Now!